Skip to content

মানুষ বড় হওয়ার জন্যে কি না করতে পারে – Bengali Sex Story

মানুষ বড় হওয়ার জন্যে কি না করতে পারে ,
তাই কবিতা বলে একজন গায়িকা হওয়ার জন্যে নিজের ইজ্জতও দিতে দিধা করেনি ৷
কবিতা গ্রামে থাকে , বয়স আঠেরো—উনিশের মধ্যে ,দেখতে বেশ সুন্দরি খুব ভালো গান গায় ৷

বাবা —মায়েরও ইচ্ছা মেয়ে গায়িকা হোক ৷ কবিতার বয়ফ্রেন্ড গৌরাঙ্গ ,সেও চায় কবিতা বড়ো গায়িকা হোক ৷ একদিন এক কলেজ ফানশানে কবিতা গান গাইলো ,সেখানে এক মিউজিক ডিরেক্টর এসেছিলো , তার কাছে গৌরাঙ্গ প্রস্তাব রাখলে তিনি বললেন ঠিক আছে ।
আমাদের সঙ্গে দেখা করো (———)ঠিকানায় ৷ গৌরাঙ্গ খুব আনন্দের সঙ্গে কবিতাকে নিয়ে সেখানে পৌঁছে গেলো , সেখানে গিয়ে দেখলো একটা ঘরের ভিতরে ডিরেক্টর সাহেব,আরও দুজন মিউজিসিয়ান কথা বলছেন ৷
গৌরাঙ্গ—নমস্কার স্যার

ডিরেঃ—নমস্কার , কে তোমরা কি চাই ?
গৌঃ—স্যার আপনি আসতে বলেছিলেন ৷
ডিরেঃ—ওহ আচ্ছা তা ওর নামটা যেন কি?
কবিতা একটু নরম আওয়াজে বলল ,স্যার আমার নাম কবিতা ৷

ডিরেঃ—বসো
ওরা ডিরেক্টরের পাশে আলাদা সোফায় বসে পড়লো ৷
ডিরেঃ— কবিতা তুমি গান কোথায় শিখেছো ?
কবিতা—স্যার, আমার মায়ের কাছে
ডিরেঃ—তোমার মা কি খুব বড় গায়িকা ?
কবিতা—(ঘাবড়ে গেলো) না মানে…

ডিরেঃ—দেখো ফানশানে গান গেয়ে দু চারটে হাততালি পেয়ে মনে করোনা তুমি অনেক বড়ো গায়িকা হয়ে গেছো ৷ তোমার যদি গায়ক হওয়ার ইচ্ছা থাকে আরও অনেক শিখতে হবে পরিশ্রম করতে হবে ৷
কবিতা—স্যার ,আমি খুব পরিশ্রম করতে চাই এবং শিখতে চাই ,যদি আপনি অনূগ্রহ করে শেখান ৷
ডিরেঃ—(গৌরাঙ্গের দিকে) ইনি কে ?
কবিতা—আমার বন্ধু

ডিরেঃ—ঠিক আছে প্রতিদিন সন্ধা আটটার সময় এখানে আসবে আমি তোমাকে তৈরী করে নেবো ৷ কবিতা—ও কে স্যার,আজ আসছি ৷ …ও কে কবিতা যাওয়ার পর মিউজিসিয়ানরা ডিরেক্টরকে বলল স্যার মালটার গলা কিন্তু সত্যি ভালো ৷
ডিরেঃ—আরে ভাই এখনকার যুগে গলা থেকে তলা সব ভালো হতে হবে ৷ —ও কে স্যার ৷
কবিতা পরেরদিন সন্ধায় এসে গেলো , —গুড ইভনিং স্যার ৷ —হ্যাঁ কবিতা এসেছ, বসো !
ডিরেঃ ভাষান দেওয়া শুরু করলেন ৷

শোনো কবিতা এখন মার্কেটে প্রচুর গায়ক গায়িকা আছে ! তাদেরকে ছেড়ে শ্রতাকে তোমার দিকে আনতে হলে নিশ্চয় তোমার গানে মধু থিকতে হবে আর সেই মধু আমি তোমার কন্ঠে এনে দেবো, শুধু তোমার মনজযোগ থাকা চাই ৷ — ও কে স্যার ৷ —একটা গান গাও তো , দো ঘুঁট মুঝে ভি পিলাদো শারাবি ফির দেখ হোতা হ্যায় কিয়া ৷
কবিতা গাইছে মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।।
ডিরেঃ—হোলো না , হোলো না এতো সুন্দর রোমান্টিক গান ভালো করে গাও ৷

কবিতা আবার … মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।।
ডিরেঃ—ওহহো কবিতা কি হচ্ছে , ঠিক মতো রোমানস্ হচ্ছে না ৷ আবার গাও , কবিতা আবারও গান গাইল .
ডিরেক্টর রেগে —আচ্ছা তোমার বয়ফ্রেন্ডের সাথে কি এই ভাবে রোমানস্ করো ? এমন ভাবে রোমান্টিক গান গাইছ যেন তুমি কোনোদিন রোমানস করোনি ৷ নাও আবার ৷

কবিতা – মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।।
ডিরেঃ— কবিতা তুমি বিরক্ত হয়ো না , আওয়াজে একটু সেক্সি ভাব মানে সেক্সি আওয়াজ দাও , লজ্জা করোনা আমাদের লজ্জা নামের কথাটা মন থেকে মুছে ফেলতে হবে ৷ ( কবিতার খারাপ লাগছে কিন্তু কি করে তাকে গায়ক হতে হবে )
—গাও মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।।

গায়িকা হওয়ার জন্যে নিজের ইজ্জত বিসর্জন করার বাংলা সেক্স স্টোরি

ডিরে — নাহ ” কবিতা এদিকে এসো আমার সামনে দাঁড়াও দেখো তোমার আওয়াজ কেমন চেন্জ হয় ৷ কবিতা সামনে এসে দাঁড়ালো , ডিরেক্টর কবিতার নাভির চার পাশে হাত বোলাতে আরম্ভ করলেন , কবিতার শরীরে যেনো কারেন্ট বয়ে যাচ্ছে কারন এই প্রথম তার পেটে ভরা জওয়ানিতে কোনো ছেলে হাত বোলাচ্ছে ৷ —এবার গাও ,
কবিতা — মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।।
ডিরে —বাহ ভেরী নাইস , আবার গাও ,
কবিতা – মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো, মহুয়ায় জমেছে আজ মৌ গো , চুলে ঢাকা চেরাতে ওই সোনা রঙ লেগেছে যে …।। ৷ এই ভাবে প্রায় কুড়ি মিনিট গাইলো আর ডিরেক্টর কবিতার পেটের চর্বিতে হাত বুলিয়ে নিলো ৷ ডিরে — আজ এই পর্যন্ত , চিন্তা করোনা খুব ভালো গেয়েছো ৷ আবার কাল আসবে ৷ আমার অন্য কাজ আছে তুমি যাও ৷ —ও কে ৷

প্রথম দিনে গান শিখতে এসে কবিতার যোনীতে জল এসে গেলো ,কারন ডিরেক্টরের আসল উদ্দেশ্য হল তাকে বিছানাতে আনা ৷ পরেরদিন কবিতার উরুতে বাজনা তুলে প্যান্টি ভিজিয়ে দিল ৷ তারপরের দিন পিঠে আর পাছায় বাজনা তুললো , এইভাবে সপ্তাহ খানেকের মধ্যে কবিতার শরীরের প্রায় অধিকাংশ হাত বুলিয়ে বাজনা তুললো ৷ কবিতা ইচ্ছা সে গায়ক হওয়ার জন্যে যে কোনো প্রতিদান দিতে পারে ৷ তাই ডিরেকটরের কাছে যেন সে বিক্রি হয়ে গেছে ৷
আর ডিরেক্টরের ইচ্ছা বিছানায় যাওয়া ৷

গত কদিনে কবিতা ভালোভাবে বুঝতে পেরেছে ডিরেক্টর আসোলে কোন সুর তুলতে চাইছেন ৷
তাই আজ যথা সময়ে ডিরক্টরের বাড়িতে চলে এলো ৷ কবিতাকে দেখে তিনি অবাক ! তিনি বুঝতে পারছেননা আজ গাইতে নাকি নাচতে এসেছে ৷ আহ কি ড্রেসিং , ব্লাক রঙের টাইট লেগিন্স পরে আছে যার জন্যে পায়ের নিচে থেকে উপর পর্যন্ত সর্ব কাঠামো উজ্জল ,সেই সঙ্গে যোনির ফোলা অংশটাও আর গায়ে লাল সর্ট এবং টাইট টি-সার্ট , স্তন যুগল যেনো দুইখানা ফজলি আম ঝুলছে , আর একটু নিচে পরিস্কার থালার মতো পেটের মাঝে নাভিটা যেনো একটা ছিদ্র ৷ ডিরেক্টর দেখে তাঁর নিচের মাথার পাগলামিতে উপরের মাথা কাজ করছেনা ৷

তিনি ভেবেই নিয়েছেন আজ যে করেই হোক পপ্ মিউজিক তুলতে হবে ৷
ডিরে—কবিতা আজ তোমাকে এমন সুর শেখাবো যেটা একটা লেডী সিঙ্গারের শেখা খুব জরুরী
কবিতা— ইয়েস স্যার
ডিরে— উলালা,উলালা ম্যাই জওয়ান হোগায়ি ৷
কবিতা— উলালা,উলালা ম্যাই জওয়ান হোগায়ি
ডিরে—নাইস , এবার বলো ! আঃ উঃ আউচ ৷
কবিতা— আঃ উঃ আউচ ৷
ডিরে—না হোলোনা , আবার বল আঃ উঃ আউচ ৷
ডিরে —আমি জানি এটা এতো সহজে হবেনা ,

শোনো আমি তোমার শরীরে হাত দিলে তবে বলবে দেখবে কতো সুন্দর সুর ওঠে ৷ বলে(স্তনে) আজ তিনি কবিতার এই স্থানে সবে প্রথম টাচ করলেন ৷ কবিতা সাথে সাথে আঃ উঃ আউচ করে উঠলো ৷
ডিরে—ঠিক আছে হতে হতে হবে আরও হোক বলে তিনি স্তন দুটো চাপছেন আর কবিতা গাইছে আঃ উঃ আউচ , এই ভাবে দশ মিনিট গাইলো ৷
এদিকে কবিতা গাওয়ার ঠেলায় যোনী থেকে রস ঝড়ছে ৷

তবুও ডিরেক্টর বলছেন , নাহ ঠিক সুর আসছেনা মনে হয় তোমার দ্বারায় হবেনা ৷
কবিতা— স্যার আরও একটু চেস্টা করুন যেভাবে হয় ৷
ডিরে—ঠিক আছে তুমি বলছো যখন লাস্ট চান্স মেরে দেখা যাক ৷ দেখো এই ধরনের সুর আনতে গেলে মনে , মস্তিস্কে, শরিরে একই রকম রোমানস্ ভরে রাখার চেস্টা করবে ৷
কবিতা— স্যার, সেটা কিভাবে আসবে আমি তো বুঝতে পারছিনা ৷

ডিরে— চলো যেখানে এই সুরটা খুব ভালো ওঠে (বিছানাতে নিয়ে গেলেন)

আমি আজ তোমার কন্ঠে সেক্সি রোমানস্ ভরে দেবো , দেখবে প্রথম গানেতে তোমার কতো নাম ছড়িয়ে যায় ৷ মনে কোনো লজ্জা বা সঙ্কট রেখোনা ৷ বলেই কবিতার টিসার্টটা উঁচু করে খুলে নিলেন, কবিত চুপ করে ছিলো, ডিরেক্টর বললেন কবিতা আওয়াজ করবেতো ৷ ও কে স্যার ৷ ব্রাটাও খুললেন , কবিতা আ…হ করল ৷ হাঁ ঠিক আছে ৷ লাল স্তনের বোঁটা দুটো ধীরে ধীরে মর্দন করছেন কবিতা — আহ আহ উঃ উঃ করছে ৷ এরপর স্তন চুসছেন , সুর উঠছে আঃ উঃ আউচ ৷ লেগিজ আর প্যান্টি এক সাথে ধরে টেনে খুলে ফেললেন , কবিতা খুব সুন্দর গাইছে ৷ যোনীতে জিভ দিয়ে চাঁটতে লাগলেন কবিতা গাইতে লাগল আঃ উঃ আউচ আর সর্ব শরীর দোলাচ্ছে ৷

ডিরে — দেখি কবিতা একটু গলাটি পরিস্কার করে দিই ,বলে ডিরেক্টরের চামড়ার ব্রাস কবিতার মুখের ভিতর দিয়ে জোরে জোরে ব্রাস করতে লাগলেন ৷ ভালো করে গলার কফ্ গুলো পরিস্কার করলেন ৷
ডিরে— হ্যাঁ এবার কেমন আওয়াজ বেরোয় দেখো ৷ ডিরেক্টর কবিতার কোমরের কাছে বসে পা দুটো দুইদিকে দিয়ে যোনীর মুখে ডিরেকটরের আট ইন্চি বাঁসিটা রেখে একটা জোরে নিশ্বাষ নিয়ে জোরে এক ধাক্কা দিলো পুরোটা চড়চড় করে ঢুকে গেল যোনীর ভেতরে ।

তারপর পপ্ মিউজিক শুরু হয়ে গেলো , আর মিউজিকের তালে তালে কবিতার গান আঃ উঃ আউচ আঃ উঃ আউচ আঃ উঃ আউচ ৷
ডিরে —আহ কবিতা কি সুর উঠছে গো , সত্যি তুমি একদিন বড় গায়িকা হবে ৷

কবিতা —স্যার গায়িকা হওয়ার নিকুচি করেছে , আপনি আরও জোরে জোরে আপনার বাঁসিটা বাজান ।

This story মানুষ বড় হওয়ার জন্যে কি না করতে পারে – Bengali Sex Story appeared first on new sex story dot com

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments